May 26, 2020, 11:40 am

হাইকোর্টের নির্দেশে খুলে দেওয়া হলো লক্ষ্মীপুর পৌর হকার্স মার্কেট

 

জনকণ্ঠ নিউজঃনাম জটিলতায় দীর্ঘ এক মাস বন্ধ থাকার পর খুলে দেওয়া হলো লক্ষ্মীপুর পৌর হকার্স মার্কেট। হাইকোর্টের নির্দেশের আলোকে রবিবার দুপুরে লক্ষ্মীপুরের সহকারী কমশিনার নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট খবিরুল আহসান’র নেতৃত্বে মার্কেটটির ৮২টি দোকানের তালা খুলে দেওয়া হয়।এসময় লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ১৮জুলাই পৌর হকার্স সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আবদুল আজিজ’র হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন। এর প্রেক্ষিতে গত ৩১ জুলাই বিজ্ঞ হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি জে.বি.এম হাসান ও মোঃ খাইরুল আলম’র এক বিচারীক ব্র্যাঞ্চ ব্যবসায়ীদের দোকানপাট চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা দেন।

জানতে চাইলে সহকারী কমশিনার নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট খবিরুল আহসান বলেন, হাইকোটের নির্দেশেই লক্ষ্মীপুর পৌরসভা হকার্স মার্কেটের সব দোকান পাট চালু করে দেওয়া হয়েছে।

রিট পিটিশনে বিবাদী করা হয় বাংলাদেশ, প্রতিনিধি-সচিব, ভূমি মন্ত্রনালয়, লক্ষ্মীপুর ডিপুটি কমিশনার, লক্ষ্মীপুর পৌসভার মেয়র, রেজিষ্ট্রার সমবায় সমিতি, লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার, লক্ষ্মীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও স্থানীয় সরকার পল্লি উন্নয় ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের সচিব।

ওই রিট পিটিশনে বিবাদীগনকে কারণ দর্শানোর নির্দেশও দেওয়া হয়। ১৯৯১ সালে ৩ ডিসেম্বর লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সাথে পৌর হকার্স সমবায় সমিতির সম্পাদিত (রেজি.কৃত দলিল নং-১৩০৯৬) লীজ এ উল্লেখিত তপছিল বর্ণিত সম্পত্তিতে নতুন দালান(মার্কেট) নির্মাণের পর হকার্স সমিতির ৮২ জন সদস্যদের বরাদ্দ চালিয়ে যেতে নির্দেশ কেন প্রদান করা হবে না এবং পরবর্তীতে এমন আদেশ পাস করা হবে না, যা বিজ্ঞ আদালত সঠিক ও উপযুক্ত মনে করে। রুলটি চার সপ্তাহের মধ্যে ফেরতযোগ্য। বিজ্ঞ ডিপুটি এটর্নী জেনারেল এড.ইন্টেরিম আদেশের জন্য প্রার্থনা বিরোধিতা করেন। রুলের নিস্পত্তির প্রেক্ষিতে, আদেশের তারিখ থেকে ছয় মাস মেয়াদের জন্য বা তপছিল বর্নিত সম্পত্তির উপর নির্মাণ কাজ শুরু পর্যন্ত, যেটি আগে হয় সেই অনুপাতে তপছিল বর্নিত সম্পতি যার নাম পৌর হকার্স মার্কেট, লক্ষ্মীপুর এর ব্যাপারে হকার্স সমিতির সদস্যদের বেদখল থেকে একটি অর্ডার অব ইংজাংশন দ্বারা বিবাদীদের বিরত রাখার নির্দেশ দেওয়া হলো।

উল্লেখ্য, বিগত ৮ জুলাই বিকেলে বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য পৌর হকার্স মার্কেটের নাম বদল করে আজীম শাহ মার্কেট নামে লিখা একটি স্ট্যাম্পে ব্যবসায়ীদের স্বাক্ষর গ্রহণ করা হয়। এতে অনেক ব্যবসায়ী স্বাক্ষর দেয় নি । পরে পৌরসভা হকার্স সববায় সমিতি সভাপতি হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন।

এদিকে দীর্ঘ এক মাস দোকানপাট বন্ধ থাকায় ব্যবসায়ীদের প্রায় ৫ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান হকার্স সমিতির সাধারণ সম্পাদক মমিন উল্যাহ সহ অন্যান্য ব্যবসায়ীরা। তারা বলেন, প্রতিদিনই ১০-৫০ হাজার টাকা বেচা বিক্রি হতো। কিন্তু মার্কেট বন্ধ থাকায় তাদের প্রচুর লোকসান গুনতে হয়েছে।

Comments are closed.


     এই জাতীয় আরো খবর